আমার ছেলে অপরাধী, ছেলের সর্বোচ্চ শাস্তি চান দিহানের - মা

 মরিয়ম চম্পা: অপরাধী প্রমাণিত হলে দেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী সর্বোচ্চ শাস্তি চান রাজধানীর কলাবাগানে শিক্ষার্থী ধর্ষণ ও হত্যা মামলার ঘটনায় অভিযুক্ত দিহানের - মা সানজিদা সরকার।

Seler sorboccho sasti chan dihaner ma

{tocify} $title={Table of Contents}


আমি আগে থেকেই জানতাম যদি:


তিনি আরো বলেন, কলাবাগানের দলফিন গলি বাসায় ঘটনার বিষয়ে তার সঙ্গে কথা হয় মানবজমিনের আনুশকার মৃত্যুর ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে তিনি ঘটনার সঠিক তদন্ত এবং সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন। এছাড়াও তিনি আরো বলেন আমার মনের অবস্থা খুব খারাপ কথা বলার মতো অবস্থা নেই নেই. আমি ফারদিনের বাবা আব্দুর রব সরকার ঘটনার পরে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বর্তমানে তিনি কলাবাগানের বাসায় আছেন আমি যদি এখন সারাদিন সম্পর্কে ভালো কথা বলি তাহলে একটি প্রশ্ন থেকেই যায়।


সবাই এরকমই বলবে, ফারদিন যদি এতই ভালো হত তাহলে কেন এই দুর্ঘটনাটি ঘটে ফারদিনের সঙ্গে যদি আনুশকার একটি সম্পর্ক নাই থাকতো তাহলে সেটা তো আমরা অন্যায় ভেবে দেখছি না, সম্পর্ক আছে বলে আমরা এ বিষয় নিয়ে কথা বলছি।


তিনি আরো বলেন, ঘটনার দিন আমার বাবা অসুস্থ ছিলেন তাকে দেখতে সিরাজগঞ্জে যায় সারাদিন আনুশকার সম্পর্কের বিষয়টি আমি আগে থেকে জানতাম না তবে আমার ছেলে ফারদিন এভাবে বাসা থেকে কোথাও বের হতো না আমি থাকা অবস্থায় এরকম কখনো কোনদিন করতে দেখিনি এই ঘটনার পরে আমি কল্পনাও করতে পারিনি যে আমার ছেলেটা বেয়াদব।


তবে যাই বলুন না কেন, ইতিমধ্যে তার দোষ স্বীকার করেছে এবং যদি সে অন্যায় করে থাকে তাহলে তাকে আদালতে শাস্তি দিবে আমি মাথা পেতে নেব বলে জানিয়েছেন।


ফারদিনের মা আরো জানান, এমন কিছু হবে যদি আমি ঘুমের ঘোরেও জানতাম তাহলে ফারদিন কে কখনোই একা বাসায় রেখে যেতাম না প্রথমে একজন নারী এবং পরে মা হিসেবে ঘটনা মেনে নেওয়া কষ্টকর। পুরো ঘটনাটি কে বোঝার চেষ্টা করেছি ফারদিনের বন্ধুদের কাছ থেকে জানার চেষ্টা করেছি আদিনের ধর্ষণ ও হত্যার উদ্দেশ্যে ছিল কিনা একজন নারী হিসেবে কোন মেয়ে বা কিশোরী ধর্ষণ এবং হত্যা করার বিষয়টি কখনোই প্রত্যাশা করি না.


দিহানের  মায়ের খোলা চিঠি:

গত 7 জানুয়ারি আমার বাসায় আমার ছেলে রিহান ও ওর বান্ধবী ওড়না আমিনের ঘটনায় আমি হতবাক একজন মা ও নারীর ধরনের ঘটনা মেনে নেওয়া কষ্টকর গতদিন আমি কোন সংবাদমাধ্যমে কথা বলিনি কারণ আমি পুরো ঘটনা বোঝার চেষ্টা করেছি বন্ধু-বান্ধবের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করে আমার ছেলে ধর্ষণ এবং হত্যার উদ্দেশ্যে ছিল কিনা তা জানার চেষ্টা করেছি একজন নারীকে পণ্য প্রদর্শিত কখনোই চাইনা।


7 জানুয়ারি সকাল 10 টা 45 মিনিটে আমি আমার অসুস্থ তাই তাকে দেখতে যাওয়ার জন্য দিয়েন কে বাসায় রেখে বগুড়ার উদ্দেশ্যে রওনা হই আমার অন্য ছেলে নিজের কর্মস্থলে ছিল যমুনা সেতু পার হওয়ার পর দুপুর 2 টা 45 মিনিটে প্রাথমিকভাবে জানতে পারে মর্ডান হাসপাতাল হাসপাতালে বান্ধবী মারা গেছে পুলিশ গ্রেফতার করে দ্রুত ঢাকায় এসে আমার পাশের সঙ্গে দেখা করতে এসেছে এবং মারা গেছে।

 

রাকিবের গোপন সমস্যার কথা তুলে ধরে চিকিৎসা নিতে বললেন তামিমা

 

একজন আরেকজনকে ভালোবাসে সে হিসেবে একান্তভাবে সময় কাটানোর জন্যই হয়তো ডেকেছিল উভয়ের বয়স কম একজন নাবালিকা এবং আমার ছেলের বয়স 18 বছর 7 মাস অর্থাৎ কিছু আবেগের বশে শারীরিক সম্পর্কে জড়িয়ে ছিল এবং পরিপক্কতায় পরিচয় দিয়েছে পরবর্তীতে যা ঘটেছে তা নিতান্তই দুর্ঘটনা মনে হচ্ছে আমার ছেলে ধর্ষণ হলে নিজেকে বাঁচানোর চেষ্টা করতো কিন্তু সে তা করেনি সে নিজেই মেডিকা হাসপাতাল নির্মাণ করেছে পুলিশ এ ঘটনার প্রতি যথাযথ বিচার হোক সেটাই চাই.



বিভিন্ন জায়গায় বাড়ি গাড়ির সন্ধান:


সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, তাদের পরিবারও তার বড় ভাই যুক্ত সরকারের বিরুদ্ধে হত্যার অভিযোগ রয়েছে পারিবারিক কলহের জেরে স্ত্রীকে জোর করে হত্যার অভিযোগে মামলা হয়েছিল শক্তির বিরুদ্ধে টাকার বিনিময়ে মামলাটি আগস্ট করেছেন সত্য বাবা এমন অভিযোগ রয়েছে তিন ভাই তাদের বাবা আব্দুর রব সরকার রাজশাহী জেলার অবসরপ্রাপ্ত সাব-রেজিস্ট্রার রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলা রাজবাড়ী জেলার উপজেলার তাহেরপুর রাজশাহী শহরের একটি সাগর পাড়া এলাকায় আরেকটি বাড়ি মহানগরীর পদ্মা আবাসিক এলাকায়। ঢাকার কলাবাগানের রয়েছে নিজস্ব ফ্ল্যাগ বড় ছেলে শক্তি দিয়ে তার বাবা গ্রামে থাকেন আর মা সানজিদা সরকারের সঙ্গে ঢাকার ভাষায় পারভীন ও তার মেয়ে হয়ে থাকেন নিলয় একটি ব্যাংকে চাকরি করেন 2009 সালের সত্যনিষ্ঠা খানকে হত্যার অভিযোগ উঠেছিল তার পরিবারের বিরুদ্ধে এ বিষয় নিয়ে উনার মা বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছিলেন তখন আসামিদের শাস্তির দাবিতে মরদেহ নিয়ে রাজশাহী শহরে মিছিল হয়েছিল।



মামলায় ডিএনএ পরীক্ষার নির্দেশ:


আদালত প্রতিবেদক জানান আনুশকার নুরআমিন ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় ডিএনএ পরীক্ষার নির্দেশ দিয়েছে আদালত গতকাল ঢাকা মহানগর হাকিম বেগম ইয়াসমিন আরা এনে দেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কলাবাগান থানার পুলিশ পরিদর্শক আখেরুজ্জামান আদালতে আবেদন করেন। মামলার তদন্তের স্বার্থেই ঘটনাস্থল থেকে নিহতের বিছানার চাদর বালিশের কাপড় জব্দ করা হয়েছে জব্দ করার আলামত এটিএন এর উপাদান বিদ্যমান আছে কিনা তা পরীক্ষা করা একান্ত প্রয়োজন এনালিস্ট বাংলাদেশ পুলিশের প্রয়োজন।


কলাবাগান থানার পুলিশ পরিদর্শক ঠাকুরদাস মাল বলেন ধর্ষণ এবং হত্যার আগে চেতনানাশক কোন কিছু খাওয়ানো হয়েছিল কিনা সেজন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে এবং বয়স নির্ধারণের জন্য তার নমুনা নেওয়ায় প্রতিবেদন পাওয়া গেলে মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাবে।

 সূত্র: মানব জীবন


Post a Comment

Previous Post Next Post

Facebook

Recent